1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. editor@biplobiderbarta.com : editor :
শিরোনাম:
অবিলম্বে মজুরি বোর্ড গঠন করে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২৩ হাজার টাকা নির্ধরণের দাবি করেছে জী-স্কপ ও আই.বিসি বাবা মানেই চাহিদা পূরণের হাতিয়ার || বামপন্থিদের সংগ্রাম বেগবান করতে হবে-মাহমুদ হোসেন ঢাকা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর ২৯তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত || নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কারসহ নির্বাচনকালীন নির্দলীয় তদারকি সরকার নিয়ে আলোচনা শুরুর আহ্বান প্যাডক্স জিন্স লিঃ ২০২৩ এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন গাজীপুরে সিপিবি’র শান্তিপূর্ণ মিছিলে অতর্কিত হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ হবিগঞ্জের বৃন্দাবন সরকারি কলেজে ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীদের উপর ছাত্রলীগের অতর্কিত হামলা টাকা পাচারকারী, ঋণ খেলাপীদের তালিকা প্রকাশ, টাকা উদ্ধার ও শ্বেতপত্র প্রকাশের দাবী বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগপত্র দিলেন জাতীয় সংসদের স্পিকারকে

মালিকসহ দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবী

Khairul Mamun Mintu
  • প্রকাশ : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ৬৫৬ বার পড়া হয়েছে

“নারায়ণগঞ্জ সেজান ফুড হত্যাকান্ডে” মালিকসহ দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং আইএলও কনভেনশন আনুযায়ী ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবীতে আজ ১০ জুলাই ২০২১ শনিবার বিকাল ৫ টায় বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র সাভার আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির উদ্যোগে আশুলিয়ার ইউনিক অফিসে প্রতিবাদ সভা অনুস্ঠিত হয়।

আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি খাইরুল মামুন মিন্টু সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মন্জুরুল ইসলাম মন্জু পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আশুলিয়ায় থানা রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আঃ মজিদ সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন সহ সাধারন সম্পাদক মামুন দেওয়ান বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরোয়ার হোসেন।

প্রতিবাদ সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন কারখানা মালিক আবুল হাসেমের ঔদ্বত্যপূর্ন বক্তব্যের ক্ষোভ ও নিন্দা জ্ঞাপন করেন। ফায়ার সার্ভিসের ঘোষনা অনুসারে কারখানায় অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা ছিলনা। আরো প্রতিয়মান হয় যে বিল্ডিং সেফটি, ফায়ার সেফটি ও ইলেক্ট্রিক্যাল সেফটির কোন ব্যবস্থা ছিলনা। এমনকি পুরো কারখানাটি পরিবেশ সম্মত নয় বিধায় সামগ্রিকভাবে কর্মক্ষেত্রে পেশাগত- স্বাস্থ্য নিরাপত্তা বিধান কোনভাবে মানা হয়নি। এর পরেও যখন অাগুন জ্বলছে, মানুষ পুরছে এবং বাঁচার তাগিদে শ্রমিকরা কারখানা থেকে বের হওয়ার জন্য চিৎকার করছিল তখন তাদেরকে কারখানা থেকে বের হতে না দিয়ে উপরন্তু তালাবন্ধ করে আটকে রেখে আগুনে পুরিয়ে হত্যা করা হয়। ইতিপূর্বে রানাপ্লাজা, তাজরীন ফ্যাসন, স্প্যাকট্রাম ও বাঁশখালীসহ শতাধিক ঘটনায় হাজার হাজার শ্রমিককে হত্যা করার পরও হত্যাকারীদের কোন শাস্তি হয়নি। এমনই ধিকৃত ও নিন্দনীয় বিচারহীনতার সংস্কৃতির পূণরাবৃত্তিই “নারায়ণগঞ্জ সেজান ফুড হত্যাকান্ড”। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন যে, বারবার শ্রমিক হত্যা শিল্প বিকাশ ও জাতীয় অর্থনীতির জন্য চরম হুমকি। এমতাবস্থায় দেশে সকল শিল্প কারখানায় জীবন ও জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ