1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. coderbruh@protonmail.com : demilation :
  3. editor@biplobiderbarta.com : editor :
  4. same@wpsupportte.com : same :
শিরোনাম:
সাভার শেখ হাসিনা জাতীয় যুব উন্নয়ন ইনস্টিটিউট কেন্দ্রে কমপিউটার প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ ও নবীনবরণ ও অনুষ্ঠিত: পাবনা জেলায় নতুন পুলিশ সুপার হিসেবে নিয়োগ পেলেন আকবর আলী মুনসী || পাবনার-সাঁথিয়ায় অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কর্মচারীর বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত || সাঁথিয়ার কাশিনাথপুরে বাসের ধাক্কায় ৩ জন নিহত যুক্তিসংগত কারণে আমরা এই মতবিনিময়ে যাওয়ার প্রয়োজন মনে না করায় সভায় উপস্থিত হইনি স্থায়ী মজুরি কমিশন গঠন করে জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণার দাবি নতুন নাটক শর্ট ফিল্ম ‘একদিন সকালে || আশুলিয়া রিপোটার্স ক্লাবের নতুন কমিটির শপথ গ্রহন অনুষ্ঠিত বাংলাদেশে দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারীসমাজ বৈষম্য ও সহিংসতার শিকার সাঁথিয়া উপজেলার নির্বাহী অফিসার এর সাথে ইউডিসি উদ্যোক্তাদের আলোচনা অনুষ্ঠিত

শ্রমিকদের কাছে কেএম মিন্টু’র খোলা চিঠি

মোঃ রাকিবুল হাসান
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ৮১৭ বার পড়া হয়েছে

প্রিয় শ্রমিক ভাই ও বোনেরা শুভেচ্ছা নিবেন।
করোনা সংক্রমণ এখন অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। উচ্চমাত্রার সংক্রমণ সীমান্তবর্তী জেলাসমূহ থেকে রাজধানীমুখী হয়েছে, ছড়িয়ে পড়েছে গ্রামাঞ্চলে। এমন বাস্তবতায় আমাদের সকলের এবং পরিবারের সুরক্ষায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন জরুরি হয়ে পড়েছে। শতভাগ মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করার বিকল্প নেই, স্বাস্থ্যবিধির প্রতি সামান্যতম অবহেলা করা যাবেনা।
কারখানার মালিকরা বলছেন যে, কারখানায় করোনা নেই, কর্মস্থল নিরাপদ রয়েছে।মালিকরা তাদের মুনাফার লোভে এসব কথা বলছেন।কারখানায় শ্রমিকদের জ্বর-ঠান্ডা-সর্দি লাগলেই তাদেরকে বলা হচ্ছে করোনা টেস্ট করার জন্য কিন্তু শ্রমিকরা করোনা টেষ্ট করতে গিয়ে হয়রানির স্বীকার হচ্ছে। যারকারনে কারখানায় শ্রমিকদের জ্বর-ঠান্ডা-সর্দি লাগলেই চাকুরী হারাচ্ছে।চাকুরী হারিয়ে শ্রমিকরা গ্রামে ফিরে যাচ্ছে, অন্যদিকে মালিকরা বলছেন, কারখানায় করোনা নেই-শ্রমিকরা আক্রান্ত হচ্ছেনা।

প্রিয় শ্রমিক ভাই ও বোনেরা।
আপনারা জানেন এই শ্রমিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের অর্থনিতিকে সচল করে রেখেছে। অথচ কারখানা গুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ স্বাস্থ্য বিধি মানা হচ্ছেনা।আমরা দাবী করে আসছি, শ্রমিকদের কারখানা ভিত্তিক করোনা টেষ্ট করার ব্যবস্থা করতে হবে, শ্রমিকদের জন্য কারখানার ভিতরে আইসোলেশন ব্যবস্থা করে চিকিৎসা করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য কারখানা ভিত্তিক প্রত্যেক শ্রমিককে ভ্যকসিন দিতে হবে, লকডাউনে গনপরিবহন বন্ধ থাকা কালে গার্মেন্ট মালিকের ব্যবস্থাপনায় শ্রমিকদের আনা-নেওয়ার জন্য পরিবহণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।কিন্তু এখন পর্যন্ত এসব দাবী মানা হয়নি।

প্রিয় শ্রমিক ভাই ও বোনেরা।
আপনারা দেখতে পাচ্ছে যে, সরকার আজ মালিকদের কাছে জিম্বি হয়েগেছে তাই শ্রমিকরা মরুক বা বাঁচুক তা নিয়ে কারো কোন মাথা ব্যথা নেই।এই কঠোর লকডাউনের মধ্যে গার্মেন্ট কারখানা চালু করে রেখাছে অথচ গণপরিবহণ বন্ধ করে রাখা হয়েছে।তাই নিজে বাঁচাতে হলে কে কখন আপনার কি ব্যবস্থা করে দিবে তা অপেক্ষা না করে নিজের বাঁচার ব্যবস্থা নিজেকে করতে হবে। নিজ উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে। গার্মেন্ট মালিক বা সরকারের অপেক্ষায় থাকা যাবেনা। জীবনটা আপনার আপনাকেই রক্ষা করতে হবে। সরকার কিংবা মালিকরা শ্রমিকদের মানুষ মনে করেনা, তাদের দরকার মুনাফা, শ্রমিকের জীবন না।

সকলের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলবেন, সুস্থ্য থাকবেন এই শুভকামনা।
শুভেচ্ছা্বসহ

খাইরুল মামুন মিন্টু
সাংগঠনিক সম্পাদক, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ