1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. coderbruh@protonmail.com : demilation :
  3. editor@biplobiderbarta.com : editor :
  4. same@wpsupportte.com : same :
শিরোনাম:
বিশ্ববাজারে ধারাবাহিকভাবে পড়ছে অপরিশোধিত তেলের দর দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়: মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ইজিবাইক নিয়ে যেসব প্রশ্ন করে না গণমাধ্যম প্রয়োজন শুধু আত্মবিশ্বাস আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিমের তৃতীয় স্থান অর্জন || পারি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য শিক্ষা কার্যক্রম শুরু । হামলা- মামলা- খুন করে সরকার মানুষকে ভয় দেখাচ্ছে শ্রমিকনেতাদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে রিক্সা-ভ্যান শ্রমিকদের দাবী মেনে নিন পাবনার বেড়া নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নে শিয়ালের কামড়ে আহত ৪০ || সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার তরুণ যুবক রিয়ান আহমেদ নয়ন মানব সেবায় কাজ করে যাচ্ছে ।

মানসিক চাপে এক বছরে ১০১ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

Biplobider Barta
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ২৬৩ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশে করোনা মহামারির মধ্যে গত বছর ১০১ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন৷ করোনার সময় নানা কারণে মানসিক চাপে তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নেন৷ কিন্তু চলতি বছরেও পরিস্থিতি এখনো বদলানোর কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না৷

তরুণ শিক্ষার্থীদের পরিচালিত একাট স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশন তাদের এক জরিপে এই তথ্য প্রকাশ করেছে৷ প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার্থীদের কাউন্সেলিং ও মানসিক চিকিৎসায়ও সহায়তা করে৷

তারা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে জানায়, এই ১০১ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬৫ জন ছেলে শিক্ষার্থী৷ ৩৬ জন মেয়ে৷

আত্নহত্যার কারণ হিসেবে তারা মানসিক চাপের কথা বললেও এর মূলে রয়েছে পারিবারিক ও সামাজিক কারণ৷ ফাউন্ডেশনের সভাপতি রোজ তানসেন জানান, ‘‘করোনার সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ধাকায় বিচ্ছিন্নতাবোধ তৈরি হয়৷ ভবিষ্যত নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন৷ অনেক পরিবার আর্থিক দুরবস্থায় পড়ার কারণে তাদের পরিবার থেকে চাকুরি বা আয়ের জন্য চাপ দেয়া হয়৷ করোনার সময় যেটা তাদের পক্ষে ছিলো প্রায় অসম্ভব৷ মেয়েদের ক্ষেত্রে বড় একটি অংশ পরিবার থেকে বিয়ের চাপের মুখে পড়ে আত্মহত্যা করেন৷ অনেক পরিবার মনে করেছে এই এই সময়ে বিয়ে দিতে পারলে তারা কিছুটা চাপমুক্ত হবেন৷’’

তাদের জরিপ অনুযায়ী যারা আত্মহত্যা করেছেন তাদের মধ্যে ৬২ জন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, যা মোট আত্মহত্যাকারী শিক্ষার্থীর ৬১.৩৯ ভাগ৷ আর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ২৩ জন, যা মোট শিক্ষার্থীর ২২.৭৭ শতাংশ৷ বাকিরা মেডিকেল কলেজ, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী৷
এই সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সর্বোচ্চ নয়জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন৷ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের  পাঁচ এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারজন আত্মহত্যা করেছেন৷

তানসেন রোজ বলেন, ‘‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা পড়েন তাদের অধিকাংশই মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তান৷ অনেকেই গ্রাম থেকে পড়তে আসেন৷ তাদের পরিবার করোনায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে৷ তাই তাদের ওপর চাকরি বা আয় করে সংসারের হাল ধরার চাপ বেশি৷ সে কারণেই আত্মহত্যাকারীদের মধ্যে তাদের সংখ্যা বেশি৷ অন্যদিকে মেয়েদের ওপর প্রধান চাপ ছিলো বিয়ে দেয়ার৷ সংসারের হাল ধরা বা চাকরি করার চাপ তাদের ওপর ছেলেদের তুলনায় অনেক কম বলে মেয়ে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার সংখ্যা কম৷ যদিও সাধারণভাবে বাংলাদেশে নারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি৷’’

গত বছর আত্মহত্যার চেষ্টা থেকে বেঁচে যাওয়া কুয়েটের একজন শিক্ষার্থী জানান, গত বছর করোনার সময় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর তিনি তার বাড়িতে ফিরে যান৷ এরপর থেকেই তিনি বিচ্ছিন্ন বোধ করতে থাকেন, আসে ক্যারিয়ার নিয়ে বিষণ্ণতা৷ তারপর শুরু হয় পরিবারের অবহেলা এবং কিছু একটা করার চাপ৷ এক পর্যায়ে তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা করেন৷ বেঁচে গেলেও তাকে অনেক দিন হাসপাতালে থাকতে হয়৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার কপাল ভালো যে এরপর আমাকে কাউন্সেলিং করা হয়৷ আমার মানসিক শক্তি বেড়ে যায়৷ এখন আমি পুরোপুরি সুস্থ আছি৷ এখন আবার করোনার কারণে কুয়েটের ক্লাস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমি বাড়ি ফিরে যাচ্ছি৷ তবে এবার আমি জীবন সম্পর্কে অনেক সচেতন৷ আত্মবিশ্বাস অনেক বেশি৷ আশা করি করোনা আবার স্বাভাবিক হয়ে যাবে৷’’

তবে পরিস্থিতির উন্নতি এখনো তেমন হয়নি বলে জানান রোজ তানসেন৷ তিনি জানান, চলতি বছরের জানুয়ারী মাসেই ১০জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন৷

এই পরিস্থিতি থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষার জন্য পরিবার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যেমন দায়িত্ব আছে তেমনি রাষ্ট্রেরও দায়িত্ব আছে বলে মনে করেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের অধ্যপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ৷ তিনি বলেন, ‘‘১০১ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন৷ কিন্তু আত্মহত্যার মতো ঝুঁকি তৈরি হয়েছে এমন অনেক শিক্ষার্থীতো আত্মহত্যা করেননি৷ এখান থেকেই আমাদের জীবনবোধের শিক্ষায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে৷ আর করোনার পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে গেলেও শিক্ষার্থীরা কিন্তু মানসিক চাপে থাকবে৷ তার মনে করবে তারা পিছিয়ে পড়ল, তাদের দিয়ে কিছু হবে না৷ এইখানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পরিবারের দায়িত্ব আছে৷ তাদের চাপ দেয়া চলবে না৷’’

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাউন্সেলিং একটা জরুরি বিষয় বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ মজিবুর রহমান৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের ইনস্টিটিউটে স্টুডেন্ট অ্যাডভাইজার মাত্র একজন৷ এটা অনেক বাড়ানো উচিত৷ এই করোনার সময় শিক্ষার্থীরা তাদের সঙ্গে যুক্ত থাকবেন৷ তাদের সমস্যার কথা বলবেন৷ স্টুডেন্ট অ্যাডভাইজর তাদের সমস্যার সমাধান করবেন না পারলে অন্য কোথাও কাউন্সেলিং-এর ব্যবস্থা করবেন৷ মানসিক চিকৎসকের কাছে পাঠাবেন৷ পরিবারেরও দায়িত্ব আছে৷ পরিবারের সদস্যদেরও তাদের সন্তানদের দেখভালের জন্য কাউন্সেলিং করানো যেতে পারে৷’’

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ