1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. editor@biplobiderbarta.com : editor :
শিরোনাম:
দেশে করোনায় মৃত্যু বাড়ল, ৫১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৯০১ জন। দেশে আগস্টের চেয়ে সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু রোগী বাড়ছে পোশাক রপ্তানিতে ভিয়েতনামের চেয়ে আবার এগিয়ে বাংলাদেশ প্রণোদনা ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুবিধা চায় বিজিএমইএ পোশাক খাতের ১৬ শতাংশ শ্রমিকের কম মজুরি পাওয়ার শঙ্কায় হাসেম ফুড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে মালিকসহ দায়ীদের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণের দাবি শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরী ২১ হাজার টাকা নির্ধারণসহ দশ দফা দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন শক্তি ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে পাবনা- কাশিনাথপুরে করোনা সচেতনতায়  মাস্ক বিতরণ: হাসেম ফুড কারখানায় আরও একটি খুলিসহ কঙ্কাল ও হাড় উদ্ধার গার্মেন্ট শ্রমিকদের সুরক্ষায় ৫০ ইউনিয়নের যৌথ বিবৃতি

বিধিনিষেধ চলাকালে শ্রমিকদের মাসে ৩ হাজার টাকা ঝুঁকি ভাতা দেওয়ার দাবি

বিপ্লবীদের বার্তা
  • প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট, ২০২১
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

বিধিনিষেধ চলাকালে রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক কারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের মাসে তিন হাজার টাকা ঝুঁকি ভাতা দেওয়ার দাবি করেছে সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন। সংগঠনটি গত মে মাসেই শ্রমিকদের ঝুঁকি ভাতা চেয়েছে।

সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নাজমা আক্তার ও সাধারণ সম্পাদক নাহিদুল হাসান গতকাল সোমবার শ্রমসচিবকে দেওয়া এক চিঠিতে শ্রমিকদের ঝুঁকি ভাতা দেওয়াসহ ছয় দফা দাবি জানিয়েছেন। এ ছাড়া বিধিনিষেধের মধ্যে যেসব শ্রমিক ৫ আগস্টের মধ্যে কাজে যোগ দিতে পারবেন না, তাঁদের জন্য সবেতনে সাধারণ ছুটি দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা।

শ্রমিক সংগঠনটির প্রথম দাবি হচ্ছে, বিধিনিষেধের মধ্যে শ্রমিকদের আসা–যাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কারখানাগুলোকে পরিবহনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। সেটি না করলে অতিরিক্ত যাতায়াত ভাতা দিতে হবে। অন্যান্য দাবি হচ্ছে কর্মস্থলে শ্রমিকদের স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পালন করা হচ্ছে কি না, তা তদারক করতে হবে। কাজের স্থানে শ্রমিকদের মধ্যে তিন ফুট দূরত্ব নিশ্চিত করার দাবিও করেছে সংগঠনটির নেতারা।
এ ছাড়া শ্রমিক-কর্মচারীদের করোনার টিকা দেওয়ার ব্যবস্থার পাশাপাশি টিকা দেওয়ার পর সমস্যা হলে মজুরিসহ ছুটি প্রদান, বর্তমান পরিস্থিতিতে কারখানায় লে-অফ অথবা শ্রমিক ছাঁটাই না করা ও শ্রমিকদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তাব্যবস্থা চালু করার দাবি করেছে শ্রমিক সংগঠনটি।

পোশাকশিল্পের মালিকদের দাবি মেনে কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেই গত রোববার থেকে কারখানা খোলার অনুমতি দেয় সরকার। গত শুক্রবার এ–সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারির পরদিন সকাল থেকে শ্রমিকেরা বিভিন্ন জেলা থেকে শিল্পাঞ্চলে ফিরতে শুরু করেন। তবে পরিবহনসংকটের কারণে দুর্ভোগে পড়েন তাঁরা। সারা দিন শ্রমিকদের ভোগান্তির খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর রাতে সরকার লঞ্চ ও বাস চলাচলের অনুমতি দেয়।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ