1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. editor@biplobiderbarta.com : editor :
শিরোনাম:
দেশে করোনায় মৃত্যু বাড়ল, ৫১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৯০১ জন। দেশে আগস্টের চেয়ে সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু রোগী বাড়ছে পোশাক রপ্তানিতে ভিয়েতনামের চেয়ে আবার এগিয়ে বাংলাদেশ প্রণোদনা ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুবিধা চায় বিজিএমইএ পোশাক খাতের ১৬ শতাংশ শ্রমিকের কম মজুরি পাওয়ার শঙ্কায় হাসেম ফুড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে মালিকসহ দায়ীদের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণের দাবি শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরী ২১ হাজার টাকা নির্ধারণসহ দশ দফা দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন শক্তি ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে পাবনা- কাশিনাথপুরে করোনা সচেতনতায়  মাস্ক বিতরণ: হাসেম ফুড কারখানায় আরও একটি খুলিসহ কঙ্কাল ও হাড় উদ্ধার গার্মেন্ট শ্রমিকদের সুরক্ষায় ৫০ ইউনিয়নের যৌথ বিবৃতি

লালকেল্লায় পৌঁছে গেল কৃষকদের মিছিল, কৃষক সংগঠনের পতাকা উড়িয়ে দেওয়া হল

Khairul Mamun Mintu
  • প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩২৩ বার পড়া হয়েছে

লালকেল্লায় পৌঁছে গেল কৃষকদের মিছিল। শুধু পৌঁছে গেল তাই নয়, লালকেল্লায় পৌঁছে কৃষক আন্দোলনের পতাকা উড়িয়ে দিলেন তাঁরা। সংঘর্ষ, কাঁদানে গ্যাস, লাঠি চার্জ। কিছু দিয়েই পুলিশ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারল না প্রতিবাদী কৃষকদের। তিন সীমানায় সব ব্যারিকেড ভেঙে চুরমার হল মঙ্গলবার। পুলিশের ঘোষিত পথে গেল না হাজার হাজার ট্র্যাক্টর। পথ পাল্টে লালকেল্লায় গিয়ে কৃষকদের মধ্যে থেকে আওয়াজ উঠল ‘অকুপাই দিল্লি’।

পুলিশের ঘোষণা ছিল, মঙ্গলবার সকাল ১২ টা নাগাদ কৃষকদের মিছিল নির্দিষ্ট তিনটি রুটে গিয়ে আবার উৎসস্থলে ফিরে আসবে। কিন্তু বাস্তবে ঘটল উল্টো। সকাল ৮টা থেকে লাগামছাড়া গতিতে দিল্লির দিকে ধেয়ে আসতে থাকে মিছিল। পুলিশের বাধা কেউ মানেননি। আর তাই নিয়ে উত্তপ্ত হয়েছে দিল্লির নয়ডা মোড়, আইটিও মোড়, এসবিটি এলাকা।

একাধিক ফুটেজে দেখা গিয়েছে, কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটাচ্ছে পুলিশ। চলছে লাঠি। পাল্টা কৃপাণ হাতেও কৃষকদের দেখা গিয়েছে। সকাল ১০টায় নয়ডা মোড়ের চিত্রটা ছিল এমনই। পুলিশ লাঠি চালিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি।

আইটিও মোড়ে দেখা গিয়েছে, কীভাবে ব্যারিকেড ভেঙে এগিয়ে যেতে চাইছেন কৃষকরা। সেখানেও বিপুল সংখ্যায় ট্র্যাক্টর এসে পড়ে। মূলত দিল্লির সীমানা এলাকায় বেশি পুলিশ মোতায়েন থাকার কারণে দিল্লির অন্দরে পুলিশের আঁটুনি দূর্বল হয়ে পড়েছিল। সেই কারণে বিনা বাধায় এগিয়ে যেতে থাকেন কৃষকরা। আইটিও মোড় থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে দিল্লি পুলিশের সদর দফতর। সেখানে গিয়ে প্রতিবাদরত কৃষকরা হাজির হবেন কি না, তা নিয়ে বাড়তে থাকে চিন্তা।

কৃষকনেতা রাকেশ টিকায়েত জানিয়েছেন, ‘‘দিল্লিতে পৌঁছে গেলেও সেখানে বসে আন্দোলনের কোনও পরিকল্পনা বা লালকেল্লা যাওয়ার কোনও সিদ্ধান্ত কৃষক সংগঠনের পক্ষ থেকে নেওযা হয়নি। কৃষকরা দিল্লি যাবেন, আবার শান্তিপূর্ণ পথে ফিরে এসে পূর্বে যেখানে আন্দোলন করছিলেন, সেখানেই আন্দোলন করবেন।’’

কিন্তু খুব একটা আত্মবিশ্বাসী শোনায়নি রাকেশ টিকায়েতের গলাও। তিনিও বুঝতে পেরেছেন, এই বিপুল জনতাকে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। সেই কারণেই দিল্লি পুলিশও পড়ে প্রবল চ্যালেঞ্জের মুখে। আইটিও মোড়ে একটি বাস দখল করে নেন কৃষকরা। সেখানে কৃষক-পুলিশের মধ্যে শুরু হয় সংঘর্ষ। লাঠি হাতে দু’পক্ষই তেড়ে আসে। কিন্তু বিপুল সংখ্যায় কৃষকদের উপস্থিতি থাকায় পুলিশকে রীতিমতো অসহায় দেখায় দুপুরের এই সংঘর্ষে। এই পরিস্থিতিতে দিল্লির মেট্রো পরিষেবা কিছু অংশে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ