1. km.mintu.savar@gmail.com : admin :
  2. editor@biplobiderbarta.com : editor :
শিরোনাম:
দেশে করোনায় মৃত্যু বাড়ল, ৫১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৯০১ জন। দেশে আগস্টের চেয়ে সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু রোগী বাড়ছে পোশাক রপ্তানিতে ভিয়েতনামের চেয়ে আবার এগিয়ে বাংলাদেশ প্রণোদনা ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুবিধা চায় বিজিএমইএ পোশাক খাতের ১৬ শতাংশ শ্রমিকের কম মজুরি পাওয়ার শঙ্কায় হাসেম ফুড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে মালিকসহ দায়ীদের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণের দাবি শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরী ২১ হাজার টাকা নির্ধারণসহ দশ দফা দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন শক্তি ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে পাবনা- কাশিনাথপুরে করোনা সচেতনতায়  মাস্ক বিতরণ: হাসেম ফুড কারখানায় আরও একটি খুলিসহ কঙ্কাল ও হাড় উদ্ধার গার্মেন্ট শ্রমিকদের সুরক্ষায় ৫০ ইউনিয়নের যৌথ বিবৃতি

করোনা-সংকট মোকাবিলায় কৃষক সমিতি ও ক্ষেতমজুর সমিতি‘র স্মারকলিপি

বিপ্লবীদের বার্তা রিপোর্ট :
  • প্রকাশ : বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০২০
  • ৩৬৮ বার পড়া হয়েছে

চরম করোনা সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশ কৃষক সমিতি ও বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি আজ ২২ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ করেছে। স্মারকলিপিটির অনুলিপি অর্থ মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয় ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মহোদয়দের কাছে পাঠানো হয়েছে।

কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন ও ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে বলা হয়, দেশের বর্তমান সংকটকালে অর্থনীতিতে যে ধস নেমেছে, প্রধানত কৃষি খাতকে রক্ষা করা ও তার পুনরুজ্জীবনের মধ্য দিয়েই তা থেকে উদ্ধার পাওয়া সম্ভব হতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিতে আসন্ন ভয়াবহ মন্দায় আমাদের রপ্তানি ও প্রবাসীদের রেমিট্যান্স খাতে ধস নেমে আসবে। ফলে আগামী দিনে দেশের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করতে হবে কৃষিকে। জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যের জোগান দিতে হলে ও অর্থনীতিতে গতি সৃষ্টি করতে হলে প্রধান অবলম্বন হতে হবে কৃষি খাতকে। সে ক্ষেত্রে মূল অবদান রাখতে হবে দেশের মেহনতি কৃষক ও ক্ষেতমজুরদের। তাই, বর্তমানে কৃষি ও কৃষি-সংশ্লিষ্ট কৃষক-ক্ষেতমজুরদের স্বার্থ রক্ষার প্রতি নজর দেয়া বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

কৃষকের বোরো ধান কাটা, মাড়াই, নিরাপদে ঘরে তোলা, বাজারজাতকরণ ইত্যাদি সার্বিক কাজে সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান; ক্ষেতমজুরদের ধান কাটার জন্য ফসলের এলাকায় বিনাখরচে যাতায়াত, স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা, থাকা-খাওয়ার বন্দোবস্তসহ ১০ লক্ষ টাকার স্বাস্থ্যবিমা নিশ্চিত; ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুর পরিবারগুলোকে সেনা সহায়তায় চিহ্নিত করে তাদেরকে রেশন কার্ডের মাধ্যমে ৩ মাস বিনামূল্যে খাদ্যসামগ্রী সরবরাহ করা; সকল ঋণ/কিস্তি (মহাজনী, এনজিও, ব্যাংক ঋণ) মওকুফ; প্রতিটি ইউনিয়নে শস্য ক্রয়কেন্দ্র খোলা এবং চলতি বোরো মৌসুমে ২০ লক্ষ টন ধান সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ও ১০ লক্ষ টন চাল চাতাল মালিকের মাধ্যমে সরকার নির্ধারিত দামে ক্রয়ের ব্যবস্থা করা; বর্তমান সংকটকালে ক্ষুদ্র ও মাঝারী সবজি চাষি, পোল্ট্রি, ডেইরি ও গবাদিপশু খামারীকে রক্ষায় জনপ্রতি দশ হাজার টাকা সরাসরি সহায়তা প্রদান ও ২% সরল সুদে ঋণের ব্যবস্থা; সবজি জাতীয় কৃষিপণ্য সরকারি উদ্যোগে বাজারজাত করার ব্যবস্থা করা, ত্রাণ-সাহায্য বিতরণে দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, দলীয়করণ বন্ধ করা, গ্রামাঞ্চলে কর্মরত সকল ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, পরিবহণশ্রমিক ও ক্ষেতমজুরদের সুরক্ষায় মাস্ক, পিপিই ইত্যাদির ব্যবস্থা করা; দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে পর্যায়ক্রমে ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারি ক্রয়কেন্দ্র, খাদ্যগুদাম ও সবজিচাষ অধ্যুষিত অঞ্চলে হিমাগার নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করাসহ স্মারকলিপিতে ১০ দফা দাবি জানানো হয়।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

আমাদের পেজ